তিন অপরাধে বরখাস্ত আফগান ক্রিকেট বোর্ডের সিইও

0
17

স্পোর্টস ডেস্ক
সোমবার হুট করেই বরখাস্ত করা হলো আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (এসিবি) চিফ এক্সিউটিউব লুতফুল্লাহ স্ট্যানিকজাইকে। তিন অপরাধ দেখিয়ে আনুষ্ঠানিক এক চিঠির মাধ্যমে বিদায় জানানো হয়েছে লুতফুল্লাহকে। বোর্ডের সঙ্গে তার চুক্তির মেয়াদ আরও দুই বছর বাকি ছিলো।

এসিবি চেয়ারম্যান ফারহার ইউসুফজাই জানিয়েছেন অব্যবস্থাপনা, অসন্তোষজনক পারফরম্যান্স এবং ম্যানেজারদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের কারণে বরখাস্ত করা হয়েছে সিইও লুতফুল্লাহকে। বরখাস্ত করে দেয়া চিঠিটি হাতে পেয়েছে ইএসপিএন ক্রিকইনফো।

যেখানে লেখা রয়েছে, ‘জরুরি ভিত্তিকে আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চিফ এক্সিকিউটিভ হিসেবে আপনার সঙ্গে করা চুক্তিটি রহীত করা হলো। এসিবির সঙ্গে আপনার শেষদিন ২৯ জুলাই ২০২০। আপনাকে বরখাস্ত করার কারণ অব্যবস্থাপনা, অসন্তোষজনক পারফরম্যান্স এবং ম্যানেজারদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার।’

অতিশীঘ্রই ফাঁকা হওয়া সিইও পদের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেবে এসিবি। লুতফুল্লাহর সঙ্গে তাদের কাজের অভিজ্ঞতা ভালো না হওয়ায়, এবার বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করা হবে। বরখাস্ত করার আগে কয়েকবার মৌখিক ও লিখিতভাবে সতর্ক করা হয়েছিল লুতফুল্লাহকে। কিন্তু এতে তার বোধোদয় ঘটেনি।

এদিকে লুতফুল্লাহ নিজে এ বিষয়ে বোর্ডের কাছ থেকে শোনার আগে জানতে পেরেছেন সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। তিনি প্রতিমন্ত্রী জিয়াউল হক আমারখিলের সঙ্গে কথা বলেছেন, তাও বুঝতে পারেননি যে বরখাস্ত করার মতো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

ক্রিকইনফোকে লুতফুল্লাহ বলেছেন, ‘আমি এসিবির একজন বোর্ড সদস্যের সঙ্গে কথা বলেছি, সে বলেছে এ বিষয়ে নিশ্চিত নয়। এসিবির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সিইও নিয়োগ দেয়া হয় বোর্ডের সিদ্ধান্তে এবং এ সম্পর্কিত যেকোনো সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ারও বোর্ডের আছে।’

গত বছরের জুলাইতে ভরাডুবিময় বিশ্বকাপের পর তিন বছরের চুক্তিতে সিইও হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন লুতফুল্লাহ। তার আগে তিনি দীর্ঘদিন ধরে আফগানিস্তান দলের মিডিয়া ম্যানেজার ছিলেন। সিইও পদে আসাদুল্লাহ খানের স্থলাভিষিক্ত হয়ে এক বছরের মাথায় চাকরিচ্যুত হলেন তিনি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here