ক্যন্সার কে না বলুন

2
167

হাকীম মতিয়ারা বেগম
ক্যন্সার! একটা আতঙ্কের নাম। দূরারোগ্য ও প্রাণঘাতি ব্যাধি নামে পরিচিত।প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ মানুষ ক্যন্সারে আক্রান্ত হয়ে অকালে প্রাণ হারায়। এ রোগ একবার দেখা দিলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কোন ওষুধে আর নিরাময় হয়না।তাই ক্যন্সার প্রতিরোধ করতে আমাদের দৈনন্দিন জীবনযাপন ও স্বাস্হ্যকর খাদ্যাভ্যাস গড়ে তোলাই বুদ্ধিমানের কাজ। বিজ্ঞানের অবিরাম অগ্রগতির ফলে আজ প্রমাণিত হয়েছে যে, খাবারের মধ্যেই নিহিত আছে ক্যন্সারের প্রতিষেধক যা আমাদের হাতের নাগালেই রয়েছে। আসুন আমরা জেনে নেই এবং সেই খাদ্যকে আপন করে ক্যন্সার কে না বলি।

১. গ্রিন টিঃ এতে সাইটো ক্যমিকেলস নামের এক ধরনের পদার্থের উপস্হিতি থাকার কারণে ক্যান্সার প্রতিরোধ হয়। তাই দিনে ২/৩ বার গ্রিন টি পান করুন।

২. সামুদ্রিক মাছঃ এতে ওমেগা – ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকায় ক্যান্সার প্রতিরোধ হয়।সপ্তাহে ৪/৫ দিন মাছ খান।

৩. রসুনঃ এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ধর্ম শরীরে ক্যান্সার কোষ ছড়িয়ে পড়াকে প্রতিরোধ করে।তাই প্রতিদিন সকালে খালিপেটে ২ কোয়া রসুন খান।

৪. আদাঃ ক্যান্সার প্রতিষেধক কেমোথেরাপি থেকে আদা দশ হাজার গুণ বেশি শক্তিশালী। তাই প্রতিদিন ২ গ্রাম করে দিনে ২/৩ বার চা অথবা গরম পানিতে খান।

৫. হলুদঃ হলুদে থাকা কারকিউমিন পলিফেনাল শরীরকে ক্যান্সার হওয়া থেকে মুক্ত করে। প্রতিদিন সকালে খালিপেটে ২ গ্রাম কাচাহলুদ খান অথবা দিনে একবার হলুদের চা পান করুন।

৬. মৌরিঃ এতে থাকা ফাইটে নিউট্রিয়েন্টস ক্যান্সার প্রতিরোধেে খুবই কার্যকর ভূমিকা রাখে এবং ওজন কমায়।সকাল সন্ধা খালিপেটে ১ চামচ করে মৌরি ভিজিয়ে সেই পানি পান করুন।

৭.জিরাঃ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ জিরায় রয়েছে থাই মোকুইনান যা ক্যান্সার কে আটকে দেয়। মৌরির সঙ্গে মিশিয়ে একই নিয়মে খেতে পারেন প্রতিদিন।

৮. দারুচিনিঃ প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ভরা। দিনে মাত্র ১ চা চামচ দারুচিনি গুড়া ক্যান্সারের মরণ থাবা থেকে দূরে রাখে।

৯. প্রতিদিন সকালে খালিপেটে লেবু মধু ও গরম পানি পান করুন এবং চিনি কে না বলুন।

১০. এছাড়া কাঁচা মরিচ, বাদাম, পেঁয়াজ, আমলকি,পেঁপে, গাজর ইত্যাদি নিয়মিত খেলে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ঘাটতি পূরণ হবে এবং ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা কমবে।

পরামর্শঃ ওজন নিয়ন্ত্রণ করুন, ধুমপান ও মাদক থেকে বিরত থাকুন। নিয়মিত ব্যায়াম করুন ও প্রখর সূর্যালোক থেকে দূরে থাকুন।

প্রভাষক, খুলনা ইউনানী মেডিকেল কলেজ,খুলনা।
ইউনানী, আয়ুর্বেদ ও হারবাল মেডিসিনে অভিজ্ঞ।

2 মন্তব্য

  1. চমৎকার জ্ঞানগর্ভ লেখা। লেখিকাকে অনেক অনেক অভিনন্দন।

  2. চমৎকার জ্ঞানগর্ভ লেখা। লেখিকাকে অনেক অনেক অভিনন্দন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here